1. admin@betnanews24.com : Betna :
বিএনপি থেকে জামায়াত ছেড়ে আসার কারণ | বেতনা নিউজ ২৪
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:১৬ অপরাহ্ন

বিএনপি থেকে জামায়াত ছেড়ে আসার কারণ

বেতনা নিউজ ২৪ ডেস্ক,
  • প্রকাশিত : সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০২২
  • ১৪৮ বার পঠিত

বেতনা নিউজ ২৪ ডেস্ক,

 

সম্প্রতি জামায়াতের আমির ডা. শফিকুর রহমান দেওয়া বক্তব্যের ভিডিও রাজনীতিতে নতুন চাঞ্চল্যের তৈরি করেছে। ভিডিওটিতে তাকে বলতে দেখাযায় প্রায় দুই যুগের জোটসঙ্গী বিএনপি ছাড়ছেন তারা। মুহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হাওয়া বক্তব্যে তিনি জোটের কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।
তিনি বলেন, ‘বছরের পর বছর পর এই ধরনের অকার্যকর জোট চলতে পারে না। এই জোটের সঙ্গে বিভিন্ন দল যারা আছেন, বিশেষ করে প্রধান দলের (বিএনপি) এই জোটকে কার্যকর করার কোনো চিন্তা নাই। বিষয়টা আমাদের কাছে স্পষ্ট দিবালোকের মতো এবং তারা আমাদের সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন বাস্তবতা হচ্ছে নিজস্ব অবস্থান থেকে আল্লাহর উপর ভর করে পথ চলা।’

বিএনপি-জামায়াতের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে সম্পর্ক ভালো যাচ্ছে না। জামায়াত মনে করে ২০০৬ সালের ২৮শে অক্টোবর আওয়ামী জোটের লগি বৈঠার আন্দোলনে ২০ দলীয় জোট তার দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছে। তারপর মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে একের পর এক শীর্ষ নেতার মৃত্যুদণ্ড মোকাবেলায়ও বিএনপিকে পাশে পায়নি দলটি।

 

 

এদিকে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি হিসাবে চিহ্নিত জামায়াতকে নিয়ে বিএনপিতেও চরম অস্বস্তি ছিলো শুরু থেকেই। ক্ষমতায় থাকাকালে তা কিছুটা সামাল দেয়া গেলেও গত ১৫ বছর ধরে ধর্মভিত্তিক এই সংগঠন নিয়ে ঘরে বাইরে অনেক সমালোচনার মূখোমূখি হতে হয়েছে মধ্যপন্থি দল বিএনপিকে। এরপরও জামায়াতে ইসলামীকে নিয়েই দীর্ঘকাল রাজনৈতিক পথ ভেঙেছে বিএনপি।

তবে গত জাতীয় নির্বাচনের আগে প্রগতিশীল কয়েকটি দলকে নিয়ে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে আলাদা জোট করে বিএনপি। ঐক্যফ্রন্ট নামে সেই জোটে নেয়া হয়নি জামায়াতসহ ২০ দলীয় জোটের অন্যান্য ছোট দলগুলোকে। আবার ২০ দলীয় জোটও বিলুপ্ত করার হয়নি। এমন বাস্তবতায় জামায়াতের দিক থকে তাদের মূল্যায়ন না করার অভিযোগের বিপরিতে আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধি আন্দোলনে জমায়াত-শিবিরের নিষ্কৃতার অভিযোগ করে বিএনপি।

 

 

বিএনপি যে জামায়াতকে নিয়ে আর চলতে চায়না সে কথাও উঠে এসেছে জামায়াতের আমীরের বক্তব্যে। জোট নিয়ে বিএনপির আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করে ডা: শফিক বলেন, ‘আমরা তাদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করেছি, এর সঙ্গে তারা ঐক্যমত পোষণ করেছে। তারা আর কোনো জোট করবে না। এখন যার যার অবস্থান থেকে সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করবো। যদি আল্লাহ আমাদের তৌফিক দান করেন তবে আমাদের আগামী দিনগুলোতে কঠিন প্রস্তুতি নিতে হবে। অনেক বেশি ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। দোয়া করেন, এ সকল ত্যাগ যেন আল্লাহর দরবারে মঙ্গলজনক হয়। এ ত্যাগের বিনিময়ে আল্লাহ পাক যেন আমাদের পবিত্র একটি দেশ দান করে। যে দেশটা কোরআনের আইনে পরিচালিত হবে।’

শরীয়াহ আইন মানেন না বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেওয়া এই বক্তব্যেরও তীব্র সমালোচনাও করেন জামায়াতের আমীর।

১৯৯৯ সালের ৬ জানুয়ারি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, জামায়াতের তৎকালীন আমির গোলাম আযম এবং ইসলামী ঐক্যজোটের তৎকালীন চেয়ারম্যান শায়খুল হাদিস আজিজুল হককে নিয়ে চার দলীয় জোট করে বিএনপি। পরে জাতীয় পার্টি জোট থেকে বেড়িয়ে গেলেও জোটের সঙ্গী হয়ে ২০০১ সালে ক্ষমতার স্বাদ পায় জামায়াত।

 

 

তবে কি বিএনপি-জমায়াতের প্রায় দুই যুগের রাজনৈতিক বোঝাপরা ছিন্ন হয়েগেলো? দুটি দলেরই কমন প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করার মিশন থেকে কি জামায়াত সরে গেল? এবিষয়ে জামায়াত আমীরের বক্তব্যে ইংগিত হল, ‘এখন বাস্তবতা হচ্ছে নিজস্ব অবস্থান থেকে আল্লাহর ওপর ভর করে পথচলা। তবে হ্যাঁ, জাতীয় স্বার্থে একই দাবিতে যুগপৎ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবো ইনশাআল্লাহ।’

জামায়াতের জোট ছাড়ার বিষয়ে এখনো কোন প্রতিক্রিয়া দেয়নি বিএনপি। আর আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্যও পরস্পর বিরোধী। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেছেন, ‘বিএনপির বড় উইকেট পড়ে গেছে। জামায়াতে ইসলাম বলেছে বিএনপির সঙ্গে তারা আর নেই। তারা এখন শোকে কাতর।’ তবে বিএনপি থেকে জামায়াতের আলাদা হওয়াকে রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে দেখছেন ‘আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত কখনো ছিন্ন হবে না। জামায়াতের আমির বলেছেন তারা যুগপৎ আন্দোলনে থাকবে। এটি তাদের রাজনৈতিক কৌশল। একাত্তরে জামায়াত, পঁচাত্তরে জিয়াউর রহমান পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করেছে। এখনো তাদের উত্তরসূরীরা একই কাজ করছে। বিএনপি জামায়াতকে কখনো ছাড়তে পারবে না।’
আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘বিএনপিকে ছেড়ে জামায়াত চলে গেছে না জামায়াতকে ছেড়ে বিএনপি চলে গেছে, তা বোধগম্য নয়। আসলে রসুনের গোড়া এক জায়গায়ই হয়।’
তিনি আরও বলেন, ‘ওদের চরিত্র এক, ওদের লক্ষ্য এক। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসকে তারা মুছে ফেলতে চায়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করাই তাদের উদ্দেশ্যে এদের।’

তবে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কেউ কেউ বলছেন, তিক্ত অভিজ্ঞতার আলোকে বিএনপি আর জোট ভিত্তিক রাজনীতি বিশেষ করে জামায়াতকে নিয়ে আর চলতে চায়না। বরং সরকার বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে যুগপদ আন্দোলনের কৌশন নিয়ে আগাতে চায় তারা। তবে বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের বিচ্ছেদে সরকারি দলের চালও দেখছেন কেউ কেউ, আগামী সংসদে প্রধান বিরোধী দল বানানোর টোপ দিয়ে জমায়াতকে বিএনপি থেকে আলাদা করছে আওয়ামী লীগ। দলটিকে নিবন্ধ দেয়া ও দাড়িপাল্লা প্রতিক ফিরিয়ে দেয়া নিয়েও কথা হয়েছে বলে দাবি করেন কোন কোন সূত্র। সে যাই হোক আসছে জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে রাজনীতিতে আরো নানা মেরুকরণ হবে। জামায়াত-বিএনপির আপত বিচ্ছেদের মধ্য দিয়ে হয়তো সেই মেরুকরণের সূচনা হল।

 

 

 

বেতনা নিউজ ২৪ /বে/ডে/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা