1. admin@betnanews24.com : Betna :
মরুর দেশ থেকে বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্র গঠন - বেতনা নিউজ ২৪
সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৫৪ অপরাহ্ন

মরুর দেশ থেকে বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্র গঠন

অনলাইন ডেস্ক,
  • প্রকাশিত : রবিবার, ১২ জুন, ২০২২
  • ৮৫ বার পঠিত
ছবি : সংগৃহীত
প্রকাশ : ১২ জুন,২০২২     ১১:৫২

অনলাইন ডেস্ক,

অর্ধ শতাব্দী আগে যে সব জায়গায় ছিল পথের ধারের বাজার আর তাঁবুর মতো দেখতে বসতবাড়ি,

যেসব জায়গায় ৫০ বছর আগেও মানুষ গাছ থেকে খেজুর পাড়তো, মুক্তোর লোভে সাগর বেলার ঝিনুক কুড়াতো কিংবা উট পালতো,  সে সব জায়গায় এখন অত্যাধুনিক শহর, চোখ ধাঁধানো স্থাপত্যের সারি সারি গগনচুম্বী অট্টালিকা আর প্রশস্ত সড়ক।

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু ভবন এখন সংযুক্ত আরব আমিরাতে, সবচেয়ে বিলাসবহুল হোটেলও সেখানে। এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দামে চিত্রকর্ম কিনেছে আমিরাত (লিওনার্দোর আঁকা সালভাটোর মুন্ডি)।সেই সাথে আমিরাত হয়ে উঠেছে বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্র। পারস্য উপসাগরের দেশটি এখন পশ্চিমা বিশ্বের অন্যতম প্রধান মিত্র, যদিও তারা বিশ্বের সবচেয়ে বিতর্কিত স্বৈরতান্ত্রিক দেশগুলোর একটি।

কীভাবে তৈরি হলো সংযুক্ত আরব আমিরাত

কে এই মরু রাষ্ট্রের অবিশ্বাস্য রূপান্তরের রূপকার? মধ্যপ্রাচ্যের পর্যবেক্ষকরা কোনো দ্বিধা ছাড়াই যার নাম করেন তিনি হলেন সদ্য প্রয়াত শেখ খালিফা বিন জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ান। এই শতাব্দীর শুরু থেকে এ মাসে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনিই উপসাগরীয় কতগুলো মরু রাজ্যের এই কনফেডারেশনের শাসক ছিলেন।

বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী এবং আবুধাবির আমীর শেখ খালিফা ছিলেন আমিরাতের দ্বিতীয় প্রেসিডেন্ট। নানা বিতর্ক ছিল তাকে নিয়ে।

২০১৪ সালে একটি স্ট্রোকের পর থেকে শেখ খালিফা লোকসমক্ষে খুব একটা আসতেন না,তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন তারই সৎ ভাই মোহামেদ বিন জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ান। অবশ্য কেউই তাতে বিস্মিত হয়নি।

সে সময়ই ছ’টি ভিন্ন ভিন্ন রাজ্যের (আবুধাবি, দুবাই, শারজাহ, আজমান, উম আল খাইন এবং ফুজাইরা) শাসক শেখরা স্ব স্ব এলাকার শাসন ব্যবস্থা নিয়ে নিজেদের মধ্যে সমন্বয় এবং শলা-পরামর্শের জন্য একটি কাউন্সিল গঠন করেন।

পরপরই আরেকটি আমিরাত-রাস আল খাইমা-এই কনফেডারেশনে যোগ দেয়। এই সাতটি আমিরাত নিয়েই বর্তমানের আরব আমিরাতের মানচিত্র।

সে সময়কার আবুধাবির আমির জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ান (খালিফা এবং মোহামেদের বাবা) এই কনফেডারেশনের প্রথম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তার কিছুদিন আগে এ অঞ্চলে তেল পাওয়া যায়। ফলে শুরু হয় অর্থনৈতিক উন্নয়নের ব্যাপক এক প্রক্রিয়া। সেই সাথে বাড়তে থাকে জনসংখ্যা এবং জমা হতে থাকে অভ্যন্তরীণ সম্পদ।

ধনী হওয়ার প্রক্রিয়া

পারস্য উপসাগর অঞ্চলের বাকি রাজতন্ত্রগুলো (সৌদি আরব, ওমান, কাতার, বাহরাইন, কুয়েত) যে প্রক্রিয়ায় এগিয়েছে, আমিরাতও সেই একই পথে এগুনো শুরু করে।

তবে আমিরাতের অন্তর্গত সাতটি আমিরাতের সবগুলোর তেল সম্পদ একই মাত্রার নয়। আর এ কারণেই বাকি আর পাঁচ আমিরাতের তুলনায় আবুধাবি এবং দুবাই উন্নয়নের মাপকাঠিতে বাকিদের চেয়ে অনেক এগিয়ে এবং তারাই আমিরাতের জাতীয় অর্থনীতির মেরুদণ্ডে পরিণত হয়েছে।

 

এভাবেই ১৯৮৫ সালে বিদেশি বিনিয়োগ টানার জন্য দুবাইতে তৈরি করা হয় জেবেল আলি মুক্ত অর্থনৈতিক জোন। প্রায় ৪০ বছর পরও এটিই এখনও বিশ্বের বৃহত্তম মুক্ত অর্থনৈতিক জোন। দুবাইতে এখন ৩০টিরও বেশি মুক্ত অর্থনৈতিক জোন বা এলাকা হয়েছে যেখানে বিদেশি বিনিয়োগকে কর এবং শুল্ক ছাড়সহ নানারকম সুবিধা দেয়া হয়।

 

নতুন শতাব্দী

নতুন শতাব্দীতে আমিরাতের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শেখ খালিফার সামনে প্রধান চ্যালেঞ্জ হিসেবে হাজির হয় ২০০৮ সালের বিশ্ব অর্থনৈতিক সংকট।

পরিস্থিতি সামাল দিতে শেখ খালিফা দুবাইকে জরুরি তহবিল থেকে শত শত কোটি ডলার দেন।

শেখ খালিফা তেল সম্পদ কাজে লাগিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রখ্যাত সাংস্কৃতিক এবং অ্যাকাডেমিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিয়ে আসেন যা বিশ্বে আমিরাতের ভাবমূর্তি অনেক উঁচুতে নিয়ে যায়।

শেখ খালিফা তেলের ওপর অর্থনীতির নির্ভরতা কমাতে নবায়নযোগ্য জ্বালানির গবেষণার ওপর জোর দিয়েছিলেন। যদিও তারা তেল এবং গ্যাসের রপ্তানি আয় বাড়াতে ওই খাতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে চলেছে, কিন্তু গত বছর আমিরাত ২০৫০ সালে মধ্যে কার্বন নিঃসরণ শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসার ঘোষণা করেছে ।

 

 

 

বেতনিা নিউজ ২৪ অ/ডে

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা