1. admin@betnanews24.com : Betna :
সিরিয়ায় মানুষ হত্যার ভিডিও ফাঁস | বেতনা নিউজ ২৪
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:২৬ অপরাহ্ন

সিরিয়ায় মানুষ হত্যার ভিডিও ফাঁস

বেতনা নিউজ ২৪ ডেস্ক :
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ৭ জুন, ২০২২
  • ১২৪ বার পঠিত
ফাইল ছবি ডয়চে ভেলে

প্রকাশিত : ০৭ জুন, ২০২২    ০৯:৪৮

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,

ডয়চে ভেলে

প্রকাশিত: ০৮:২২ রাত জুন ০৬, ২০২২

সিরিয়ায় নয় বছর আগে ধারণ করা ছয় মিনিটের একটি ভিডিও সম্প্রতি খুব সাড়া জাগিয়েছে৷ দুই সিরীয় যোদ্ধাকে চোখ বাঁধা, নিরস্ত্র মানুষদের হত্যা করতে দেখা গেছে সেই ভিডিওতে৷ ওয়াসিম সিয়াম ২০১৩ সালের ১৪ এপ্রিল দামেস্কের বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর আর ফিরে আসেননি৷ ৩৪ বছর বয়সী ওয়াসিমের কাজ ছিল তাদামোন শহরের দক্ষিণাঞ্চলের এক সরকারি বেকারিতে ময়দা পৌঁছে দেওয়া।

সেদিন সেই কাজেই বেরিয়েছিলেন৷ ধারণা করা হয়, ময়দা পৌঁছে দিতে ঘর থেকে বের হয়ে কোনো এক সেনা ছাউনির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় আটক করা হয় তাকে৷ ওয়াসিম ঘর থেকে বের হওয়ার সময় যেমন সাদা টি-শার্ট আর জিন্স পরেছিলেন, ছয় মিনিটের ভিডিওতে ঠিক সেই পোশাকেই দেখা যায় তাকে৷

ওয়াসিমের বোন তাসনিম জানান, নিজের ভাইকেই দেখে প্রথমে তিনি চিনতে পারেননি৷ ওয়াসিমকে প্রথম চিনতে পারেন তার বাবা৷

তাসনিম বলেন, ‘‘তাকে (ওয়াসিম) দেখতে খুব অন্যরকম লাগছিল৷ ততক্ষণে হয়ত খুব পেটানো হয়েছে, কিংবা সে খুব ভয় পাচ্ছিল বলেই হয়ত তাকে বেশ অন্যরকম লাগছিল৷”

সিরিয়ায় যুদ্ধ চলছে ১১ বছর ধরে৷ এ যুদ্ধে জড়িত সব পক্ষের বিরুদ্ধেই যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ রয়েছে৷ ছয় মিনিটের ভিডিওটি করা হয়েছিল ২০১৩ সালের ১৬ এপ্রিল, অর্থাৎ ওয়াসিম সিয়াম বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হওয়ার ঠিক দুদিন পরে৷

ভিডিওতে দেখা যায়, বাশার আল আসাদ বাহিনীর অনুগত দুই সদস্য সাদা রঙের একটি ডেলিভারি ভ্যান থেকে ধরে ধরে চোখ বাঁধা মানুষদের নিয়ে আসছেন আর গুলি করে হত্যা করছেন৷

হত্যাকারীকে চিহ্নিত করা আমস্টারডাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হলোকাস্ট এবং গণহত্যা বিষয়ের অধ্যাপক উগুর উমিত উংগোর ভিডিওটি হাতে পান ২০১৯ সালে৷ সেই থেকে অজস্রবার দেখে, খুঁটিনাটি বিষয় বিচার-বিশ্লেষণ করে দুই হত্যাকারীকে চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছেন তিনি৷

এ কাজে তাকে সহায়তা করেছেন সহকর্মী আনসার শাদুদ৷ তিন বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করার পর ওই দুই ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে পেরেছেন তারা৷

জানা গেছে, দুই হত্যাকারীর একজন নাজিব আল-হালাবি তখন প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের অনুগত এক আধা সামরিক বাহিনীতে কাজ করতেন৷ তবে এখন তিনি বেঁচে নেই৷ মাছ ধরার টুপি পরা অন্য ব্যক্তি আমজাদ ইউসেফ এখনও জীবিত৷ এখন তিনি আসাদ সরকারের গোয়েন্দা বাহিনীর কর্মকর্তা৷

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের আন্তর্জাতিক অপরাধ আইন বিষয়ক বিশেষজ্ঞ আলেকজান্ডার শোয়ার্ৎসও ছয় মিনিটের ভিডিটি দেখেছেন৷ দেখে তার মনে হয়েছে, সিরিয়ার দুই সৈন্য নিরস্ত্র, চোখ বাঁধা মানুষগুলোকে যেভাবে হত্যা করেছেন তা স্পষ্টতই যুদ্ধাপরাধ৷

গত জানুয়ারিতে জার্মানির কোবলেনৎস-এর এক আদালত সিরিয়ার কর্মকর্তা আজীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে৷ তাসনিম সিয়াম তারপরও তার ভাই ওয়াসিম হত্যার বিচারের বিষয়ে আশাবাদী নন৷

 

 

 

বেতনা নিউজ ২৪/আ/ডে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা